প্রয়োজনীয়

নিজের স্মার্টফোনের ডেটা কে সাদৃশ্য করুন

Download and print this guide here. Share your Data Detox experience, keep in touch, or get inspiration for activities by writing to Safa at datadetox@tacticaltech.org!

অনলাইন হলেই যে আপনাকে সর্বত্র বিজ্ঞাপন গুলো অনুসরণ করে তাতে কী আপনার অস্বস্তি হয়ে? আপনি চান না যে আপনার অনলাইন কার্যকলাপ রেকর্ড করা হোক? আপনার ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষিত রাখতে চাইছেন অথচ বুঝতে পারছেন না যে কোথা থেকে শুরু করবেন? আমরা এখানে সাহায্য করতে এসেছি!

স্মার্টফোন ত্যাগ করে গুফায় গিয়ে থাকার কোনো দরকার নেই। আপনার ফোনে এই কিছু সহজ পরিবর্তন করে আপনি নিজের ব্যক্তিগত ডেটা সুরক্ষিত রাখতে পারেন।

এইটা কে নিজের ডেটা ডিটক্স স্টার্টার কিট মনে করুন; আপনার হাথে যদি সময় কম থাকে তাহলে এই সহজ উপায় গুলি অবলম্বন করে তৎক্ষণাৎ ডিটক্স এর ভালো প্রভাব বুঝতে পারবেন। যেহেতু এই গুলো প্রাথমিক উপায় আপনি যদি অনুপ্রাণিত হয়ে থাকেন তাহলে এখানে আরো অনেক উপায় দেয়া আছে যেগুলো অবলম্বন করে আপনি একটা ভালো অনলাইন জীবন যাপন করতে পারবেন।


১. নাম...বলা বারণ

আপনি কি কখনো নিজের ওই ফাই অথবা ব্লুটুথ বা দুটোকেই কোনো নাম দিয়েছেন? বা হতে পারে যে সিস্টেম নিজের থেকেই একটা নাম তৈরী করে দিয়েছে।

তার মানে কারুর ওই ফাই অথবা ব্লুটুথ যদি অন থাকে তাহলে অন্যরা দেখতে পাবে "মগনলাল মেঘরাজের ফোন/ ওই ফাই"

সেই জন্য আপনি নিজের ওই ফাই অথবা ব্লুটুথ এর নাম পাল্টে এরকম একটা নাম দিন যেটা আপনার ব্যক্তিগত কোনো তথ্য জানাবেনা অথচ আপনি নাম তা দেখে বুঝতে পারবেন যে ইটা আপনার সিস্টেমের।এই পদ্ধতি তে ইটা করা যায়:

এন্ড্রয়েড:

  • ওই ফাই এর নাম পাল্টান: সেটিংসওই ফাই → মেনু logoঅ্যাডভান্সড / অধিক বৈশিষ্টওই ফাই ডাইরেক্টডিভাইস এর নাম পরিবর্তন করুন
  • _ব্লুটুথ এর নাম পাল্টান- সেটিংস→ব্লুটুথ→ব্লুটুথ বন্ধ থাকলে অন করে নিন→ মেনু logoডিভাইস এর নাম পরিবর্তন করুন → ব্লুটুথ বন্ধ করুন

পরামর্শ: এন্ড্রয়েড এর একাধিক প্রকারের সংস্করণ আছে। তাই আপনার মনের মতন সেটিং পেতে হলে হয়তো একটু খোঁজাখুঁজি করতে হবে। তবে এই সুযোগে আপনি আপনার ফোনের সাথে সড়গড় হয়ে যাবেন।

আই ফোন:

  • ফোনের নাম পরিবর্তন করুন: সেটিংসজেনারেলএবাউট → নাম পরিবর্তন করুন

আপনি কি নিজের ফোন এর তথ্য কে আরো গোপনীয় রাখার পরামর্শ চান ?তাহলে পড়ুন "নিজের স্মার্টফোনের ডেটা কিভাবে সুরক্ষিত রাখতে হয়ে”।


২. নিজের অবস্থান(লোকেশন) এর পদছাপ মুছে ফেলুন

আসুন আপনার অবস্থানের ডেটা সম্পর্কে কথা বলে শুরু করা যাক -আপনার ফোন অনবরত আপনার লোকেশন ডেটার উৎপত্তি করছে, যখন আপনি লোকেশন এর এপ ব্যবহার করছেন না তখন ও।

আপনার লোকেশন ডেটা আপনার জীবন এবং আপনার পছন্দ অপছন্দ সম্বন্ধে অনেক কিছু ব্যক্ত করে। ঠিক সেই কারণে বড় বড় কোম্পানি এবং ডেটা ব্রোকার রা এই ধরণের ডেটা অনেক দাম দিয়ে ও কেনার জন্য তৎপর হয়ে থাকে।

ওপর থেকে দেখলে মনে হবে যে এই তথ্যগুলো অবান্তর কিন্তু এই ছোট ছোট তথ্য গুলো একসূত্রে গাঁথলে আপনার জীবনের অনেক জরুরি তথ্য লোকে জেনে যেতে পারে - আপনি কি ধরণের মানুষ

ব্যবহার না করলে লোকেশন ডেটা বন্ধ করে রাখুন। তাতে আপনার ফোনের ব্যাটারীও বেশিক্ষণ চলবে। দরকার পড়লে আপনি অনায়াসেই আপনার লোকেশন ম্যাপ অন (চালু) করে নিতে পারবেন।

লোকেশন সার্ভিস বন্দ করার উদাহরণ

এন্ড্রয়েড:

  • সেটিংসসিক্যুরিটি এবং লোকেশন / লোকেশন → লোকেশন বন্ধ করুন

আই ফোন:

  • সেটিংসপ্রাইভেসীলোকেশন সেবা → বন্ধ করুন

গুগল ম্যাপ এবং অন্যান্য গুগল একাউন্ট থেকে কি করে লোকেশন সেবা বন্ধ করবেন সেটা জানতে হলে, নিজের জীবন কে গুগল-মুক্ত করুন।


৩. নিজের এপ গুলো সুশৃঙ্খলিত রাখুন

মাঝে মধ্যেই নিজেকে দেখে নেয়া ভালো যে ফোনে কি কি অ্যাপ আছে যাতে আপনি নিয়মিত ভাবে অ্যাপ ক্লেন্স করে ওই অ্যাপ গুলো সরিয়ে দিতে পারেন যেগুলো আপনি আর ব্যবহার করেন না অথবা যেগুলো দরকার এর বেশি ডেটা সংগ্রহ করে।

সাধারণত মনে করা হয় যে সোশ্যাল মিডিয়া, খেলা (গেম্স), বা আবহাওয়া সংক্রান্ত অ্যাপগুলো বোধহয় খুব বেশি ডেটা সংগ্রহ করে না... কিন্তু বাস্তবে অন্য কথা বলে

অদরকারি অ্যাপ সরানোর প্রক্রিয়া আপনার অনলাইন জীবন কে পরিশুদ্ধ করার একটা ভালো উপায়। নিয়মিত অ্যাপ পর্যালোচনা ইন্টারনেট ডেটা বা ফোন ব্যাটারী ব্যবহার কমিয়ে সামগ্রিক ভাবে ফোনের পারফরমেন্স বাড়িয়ে দিতে পারে।

কোনো অ্যাপ সরানোর আগে অবশ্যই সেটিংস বা প্রোফাইল এ গিয়ে আপনার একাউন্ট বন্ধ বা ডিলিট (সারিয়ে দেওয়া) করুন।

আপনি সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে মেল করে আপনার ডেটা ডিলিট করার আবেদনও করতে পারেন। তারপর তথ্য-লোভী, অদরকারি অ্যাপগুলো সরিয়ে দিন

এন্ড্রয়েড:

  • সেটিংস → অ্যাপ → যেই অ্যাপ আপনি সরাতে চান → আনইনস্টল.

নোট: এন্ড্রয়েড এর নিজস্ব অ্যাপ, বা ফোন নির্মাতার ( এইচ. টি. সি., স্যামসাঙ, নোকিয়া ইত্যাদি ) প্রদত্ত অ্যাপগুলো ডিলিট করা যায় না।

আইফোন:

  • যে কোনো অ্যাপ টিপে রাখুন, যতক্ষণ না সব অ্যাপ নড়তে শুরু করে, এবং প্রতিটা অ্যাপ এর ওপরের বাম কোনে একটা ছোট্ট ক্রস চিহ্ন দেখতে পাওয়া যায়। যেই অ্যাপ টা ডিলিট করতে চাইছেন, তার ওপরের ক্রস চিহ্নতে ট্যাপ করুন (টিপে দিন)। তারপর হোম বাটন ট্যাপ করে নরমাল মোড এ ফিরে আসুন।

নোট: আইফোন এর নিজস্ব অ্যাপ ডিলিট করা যায় না।

যদি আপনি টাকার বিনিময় কোনো সেবা নিয়েছেন তাহলে ভবিষ্যতে কোনো টাকা পয়সার ব্যাপার থাকলে সেটা নিশ্চই ক্যানসেল করবেন (যাতে অপ্রত্যাশিত কোনো বিল না দিতে হয়ে আপনাকে). এইটা সুনিশ্চিত করার উপায় প্রতিটি সেবার আলাদা হবে। তাই ওদের সচরাচর জিজ্ঞাসা করা প্রশ্নগুলো একবার দেখে নেবেন অথবা ওদের কাস্টমার কেয়ার কে মেল/ফোন করে জেনে নিতে পারেন।

নিয়মিত অ্যাপ পরিষ্কার করলে আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন যে ইন্টারনেট এ আপনার ডেটা কত কম পাওয়া যাচ্ছে । সুতরাং কোম্পানি গুলো ও আপনার সম্বন্ধে কম ডেটা পাবে আর ওই ডেটার অপব্যবহার কম করবে। এমন অনেক অ্যাপ আছে যারা এক ই শেখা দিয়ে কিন্তু আপনার ডেটা সংগ্রহ বা বিক্রি করে না।

Alternative App Centre - এই ধরণের এপ এর খবর এখানে পাবেন।

নিত্য ব্যবহার্য বেশিরভাগ অ্যাপ বদল করাটা যদি আপনার খুব শক্ত কাজ মনে হচ্ছে, তাহলে একটা কি দুটো অ্যাপ দিয়ে শুরু করুন। যেমন ধরুন আপনার ব্রাউসার : ওটা কি ফায়ারফক্স বা কোনো প্রাইভেট আপ এর সাথে বদল করা যায়?

আপনি কি নিজের এপ গুলো সুশৃঙ্খলিত করার আরো উপায় জানতে চাইছেন? তাহলে আমাদের "অ্যাপ ক্লেন্স" পরে দেখুন।


৪. নিজের ব্রাউসার অভেদ্য করে তুলুন

আপনার ব্রাউসার হলো ইন্টারনেটের প্রবেশপথ, এবং যদি আপনার সন্দেহ যে ব্রাউসার এর মাধ্যমে আপনার সম্পর্কে অনেক তথ্য ইন্টারনেট এ চলে যাচ্ছে তাহলে আপনার ভাবনা একদম ঠিক।

আপনার ব্রাউসার আপনার সম্বন্ধে অনেক তথ্য জেনে ফেলে - আপনার অবস্থিতি, আপনি কি সার্চ করেন, কি কি ওয়েবসাইট দেখেন - এই সব টুকরো টুকরো তথ্য মিলিয়ে আপনার ব্যাপারে অনেক কিছু জানা যেতে পারে।

আমাদের পরামর্শ আপনি কিছু "এক্সটেনশন" এবং "অ্যাড অন"(এই গুলো ছোট প্রোগ্রাম যা সহজেই ব্রাউসার এ ইনস্টল করা যায় এবং আপনার ব্রাউসার এর গোপনীয়তায় বৃদ্ধি করে) নিজের ব্রাউসার এ ইনস্টল করতে পারেন।

ফায়ারফক্স অথবা ক্রোম এ:

  • গুপ্তচর বৃত্তির বিজ্ঞাপন এবং চোরা ট্র্যাকার থেকে বাঁচার জন্য Privacy Badger ইনস্টল করুন।
  • আপনার কনেকশন গুলি যত টা সম্ভব সঙ্কেতাক্ষরে রাখার জন্য যেখানে যেখানে সম্ভব HTTPS Everywhere ইনস্টল করুন। এটি একটি এরকম ব্রাউসার এক্সটেনশন যা আপনার ওয়েবসাইট দের সাথে যোগাযোগ বার্তা কে গোপনীয় এবং সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে।
  • বিজ্ঞাপন আটকাতে ইনস্টল করুন uBlock Origin

ব্রাউসার অভেদ্য করার আরো উপায় জানতে চান? তাহলে সম্পূর্ণ ব্রাউসার বুস্টার এর অভিজ্ঞতা অর্জন করুন।


৫. যা শিখলেন অন্যদেরও জানান

আপনি কি পোস্ট এবং ছবিতে ট্যাগ করে নিজের অজান্তেই আপনজন দের ইন্টারনেট এ উপলব্ধ ডেটার মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছেন?

তাহলে ওদের অনট্যাগ করে ওদের ডেটা আর নিজের মনের ভার লঘু করে ফেলুন।

পরামর্শ: ফেইসবুক আর গুগল নেপথ্যে থেকে ও ছবি আর পরিচয় চিনে নিয়ে একটার সাথে আর একটা তথ্য সংযুক্ত করে আমাদের জীবনের অনেক জরুরি তথ্য জেনে নিতে সক্ষম। তাই সোশ্যাল মিডিয়া বা গ্রূপ চ্যাট বা এই ধরণের জায়গায় ছবি বা নিজেই তথ্য না দেয়া ই ভালো। এই সব তথ্য শুধুমাত্র প্রাইভেট চ্যাট এই দেয়া উচিত। (Signal বা Wire- এই প্রাইভেট চ্যাট এপ গুলো ব্যবহার করে দেখতে পারেন )

এটি কেবল আপনার তথ্য সংগ্রহ করা নয়। বিশ্লেষকরা এই তথ্য সংযুক্ত করে আপনার পরিচিত লোকেদের প্রোফাইল তৈরি করে - তারা ফেসবুকে থাকুক বা না থাকুক।

আমাদের বন্ধুবান্ধব, আত্মীয় স্বজন এবং সহকর্মচারীদের ও এই উদ্যোগ এ সামিল করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সবাই এক সাথে চেষ্টা করলে শুধু নিজেদের না পরের ডেটা ও সুরক্ষিত রাখতে পারবে।

যদি এই উপায় গুলি অবলম্বন করে আপনার লাভ হয়েছে তাহলে আপনি নিজের জীবন কে গুগল মুক্ত করুন বা নিজের সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল কে নতুন করে সাজান পড়ে দেখতে পারেন। আর যদি ফোনে সময় কম করতে চান তাহলে স্মার্টফোন ব্যবহার করতে দরকার স্মার্ট অভ্যেস এর দেখুন।